দিনহাটা -পঞ্চায়েত ভোটের মনোনয়নপত্র স্কুটনিকে কেন্দ্র করে চরম উত্তেজনা ছড়ালো দিনহাটার সাহেবগঞ্জ এলাকায়। বোমাবাজি, তির ছোঁড়া থেকে শুরু করে বিজেপি প্রার্থীদের মারধোর, মহিলা প্রার্থীদের শাড়ী ছিড়ে মারধর ছাড়াও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিশিথ প্রামাণিককে লক্ষ্য করে তির ছোড়ার ঘটনা ঘটেছে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিশিথ প্রামাণিকের সঙ্গে পুলিশের বচসার ঘটনা ঘটে। পুলিশ ও তৃণমূলের গুন্ডাবাহিনী মিলিতভাবে বিজেপি প্রার্থীদের ওপর আক্রমণ চালাচ্ছে এমনটাই অভিযোগ করেছেন মন্ত্রী নিশিথ প্রামানিক। তিনি ফের মনোনয়নপত্র স্কুটনির দাবি তুলেছেন।
ঘটনার বিবরণে জানা গিয়েছে, সারা রাজ্যের সঙ্গে সঙ্গে দিনহাটা 2 নম্বর ব্লকের সাহেবগঞ্জ বিডিও অফিসে পঞ্চায়েত ভোটের মনোনয়ন পত্রের স্কুটনি ছিল। শনিবার নির্ধারিত সময় থেকেই রাজ্যের উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী উদয়ন গুহ এলাকায় গিয়ে তৃণমূল কর্মীদের নানাভাবে নির্দেশ দিচ্ছিলেন। বিডিও অফিস চত্বরে বিজেপি প্রার্থীদের কাগজপত্র কেড়ে নেওয়া, মারধর, এমনকি মহিলা প্রার্থীদের নানাভাবে হেনস্তার অভিযোগ ওঠে। এইসব খবর পেয়ে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী নিশীথ প্রামানিক বিজেপির শহর মন্ডল সভাপতি অজয় রায়কে সঙ্গে নিয়ে সাহেবগঞ্জে আসেন। ঢোকার মুখে পুলিশ তাকে বাধা দেয় এবং পুলিশের সঙ্গে বেশ কিছু সময় মন্ত্রীর বচসা চলে। সেই সময় তাকে লক্ষ্য করে তির ছোড়া হয় বলে অভিযোগ। কিন্তু সেই তির লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। বিষয়টি নিয়ে চরম উত্তেজনার সৃষ্টি হয় । সেই সময় ওই এলাকায় লাগাতর বোমাবাজি চলতে থাকে।


এ বিষয়ে মন্ত্রী নিশিথ প্রামাণিক বলেন, পুলিশের মদতে তৃণমূলের গুন্ডাবাহিনী বিজেপি প্রার্থীদের মারধর শুরু করেছে। তৃণমূলের গুন্ডারা আমাকে লক্ষ্য করে তির ছুড়েছে। কর্তব্যরত পুলিশ মদ্যপ অবস্থায় ডিউটি করছে। মন্ত্রী উদয়ন গুহের নেতৃত্বে তৃণমূল বিডিও অফিস চত্বরে তাণ্ডব চালাচ্ছে । বিজেপি প্রার্থীদের মারধর করে মাথা ফাটিয়ে দেওয়া হয়েছে। মহিলাদের শাড়ি ছিঁড়ে তাদের মারধর করছে। কেন্দ্রীয় বাহিনী নিয়োগ করে ফের মনোনয়নপত্র স্কুটনির দাবি তোলেন মন্ত্রী নিশিথ প্রামানিক।


এ বিষয়ে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী উদয়ন গুহ বলেন, ভালোভাবেই স্কুটনি চলছিল। এলাকায় গোলমাল করার জন্য কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নিশিথ প্রামানিক সাহেবগঞ্জে এসেছে। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সবচেয়ে বড় গুন্ডা ও চোর ডাকাত ওর মত বড় গুন্ডা সারা রাজ্যে নেই। নিজের ব্যর্থতা ঢাকার জন্য গুন্ডামি করতে এখানে এসেছে। এখানে কাউকে মারধর করা হয়নি। সকলেই শান্তিপূর্ণভাবে মনোনয়নপত্র স্কুটনিতে অংশ নিচ্ছেন।
প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, দিনহাটা ২ নম্বর ব্লকের বারটি গ্রাম পঞ্চায়েত এবং একটি পঞ্চায়েত সমিতি রয়েছে। এখানে ১২টি গ্রাম পঞ্চায়েতের আসন সংখ্যা 242 টি। পঞ্চায়েত সমিতির আসন সংখ্যা 36টি। ইতিমধ্যেই রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস বিরোধী বিজেপি এবং বাম কংগ্রেস মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। এদিন ছিল মনোনয়নপত্র স্কুটনির দিন। এই স্কুটনিকে কেন্দ্র করে উত্তাল হয়ে উঠলো সাহেবগঞ্জ এলাকা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *