তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা সব অভিযোগ ভিত্তিহীন। সিবিআই জেরার পর প্রথমবার সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে নিজের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগগুলি খারিজ করে দিলেন রাজ্যের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারী (Paresh Chandra Adhikary)। এ সব কিছুর নেপথ্যে বিরোধীদের চক্রান্তের অভিযোগ তুললেন পরেশ। সাফাই দিয়ে জানালেন তাঁর বিরুদ্ধে পরিবারের সদস্যদের চাকরি পাইয়ে দেওয়ার যে অভিযোগ উঠেছে, সেটা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন। আগামী দিনে তিনি স্বাভাবিকভাবে দলের অনুষ্ঠানগুলোতে যোগদান করবেন বলেও স্পষ্ট করে দিয়েছেন রাজ্যের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী।

মন্ত্রী পরেশ অধিকারীর কন্যা অঙ্কিতা অধিকারীর (Ankita Adhikary) চাকরি নিয়ে রাজ্যজুড়ে কম জল ঘোলা হয়নি। কলকাতা হাই কোর্ট অঙ্কিতাকে চাকরি থেকে বরখাস্তের নির্দেশ দিয়েছে। ইতিমধ্যে জেলা বিদ্যালয় পরিদর্শকের নির্দেশে বেতন বন্ধ হয়েছে মন্ত্রীকন্যার। তারপরেই মন্ত্রীর বিরুদ্ধে বাম আমল থেকেই নিজের আত্মীয় এবং ঘনিষ্ঠদের প্রায় ২৫ জনকে চাকরি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল। সেটা নিয়ে বেজায় সমালোচনার মুখে পড়লেও কার্যত মুখে কুলুপ এঁটেছিলেন মন্ত্রী। অবশেষে এদিন তিনি সমস্ত বিষয়ে উত্তর দিতে গিয়ে বিরোধীদের ঘাড়ে দোষ চাপালেন। দাবি করলেন বিরোধিতা করতে হবে বলেই শুধুমাত্র বিরোধীরা বিরোধিতা করছে। সমস্ত অভিযোগ মিথ্যে।

বুধবার জেলা তৃণমূল (TMC) সভাপতির ডাকে একটি বৈঠকে যোগদান করার পর সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে পরেশ অধিকারী বলেন, যে সমস্ত অভিযোগ তাঁর বিরুদ্ধে আনা হচ্ছে সবই মিথ্যা প্রচার। চাকরি নিয়ে বলা হচ্ছে অথচ তার স্ত্রী’র চাকরি বিয়ের আগেই হয়েছিল। দাদার চাকরি অনেক আগে হয়েছে। তিনি এখন অবসর গ্রহণ করেছেন। গোটা বিষয়টি এখনও বিচারাধীন। কাজেই আইনি লড়াইয়ের মধ্য দিয়ে সমস্যা কাটিয়ে উঠতে চান মন্ত্রী।

যদিও নিজের মেয়ের চাকরি প্রসঙ্গটি এড়িয়ে গিয়েছেন পরেশ। তিনি দাবি করেছেন সিবিআই (CBI) কোনও বিষয়ে তাকে ম্যারাথন জেরা করেনি। তবে কী বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে, সেটা স্পষ্ট করেননি তিনি। নতুন করে তাঁকে তলবও করা হয়নি। যদি সিবিআই ডাকে তিনি অবশ্যই যাবেন। কলেজ সার্ভিস কমিশনে মেয়ে অঙ্কিতার পরীক্ষা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “সে যে কোনও জায়গায় পরীক্ষা দিতেই পারে”।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *