Monday, February 6, 2023
Homeকলকাতানেতাজির লক্ষ্যেই এগোচ্ছে আরএসএস, শ্রদ্ধা মঞ্চে বললেন মোহন ভাগবত

নেতাজির লক্ষ্যেই এগোচ্ছে আরএসএস, শ্রদ্ধা মঞ্চে বললেন মোহন ভাগবত

মতাদর্শগত মিল নয়, বিরোধিতাই ছিল। সংঘের কাজকর্ম বিশেষ পছন্দ ছিল না নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর (Netaji Subhas Chandra Bose)। অপর পক্ষেরও মনোভাব ছিল একই। কিন্তু কালের চক্রে বদল হয়েছে কত কী। স্বাধীন ভারত গড়ার মূল কারিগর নেতাজিই কালে কালে হয়ে উঠেছেন সংঘের আদর্শ! সোমবার, নেতাজির ১২৭ তম জন্মদিনে কলকাতার শহিদ মিনারে ‘নেতাজি লহ প্রণাম’ অনুষ্ঠান তাঁকে শ্রদ্ধা জানাল আরএসএস। সমাবেশের প্রধান বক্তা ছিলেন সংঘ প্রধান মোহন ভাগবত (Mohan Bhagwat)। নেতাজির আদর্শ কীভাবে সংঘের কাজকর্ম চলে, তা বোঝালেন তিনি। ভাগবতের দাবি, তৃণমূল স্তর থেকে ভারত গঠনের কাজই করে চলেছে রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ।

নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর ১২৭ তম জন্মদিনে তাঁকে শ্রদ্ধা জানানোর কর্মসূচি আগেই ঠিক করেছিল আরএসএস (RSS)। এই কর্মসূচিকে সামনে রেখে ৫ দিনের সফরে বঙ্গে এসেছেন সংঘ প্রধান মোহন ভাগবত। সোমবার সকাল থেকেই শহিদ মিনারে আরএসএএস কর্মীরা কুচকাওয়াজ শুরু করেন। অনুষ্ঠান মঞ্চের ব্যানারে বাংলায় লেখা ছিল ‘নেতাজি লহ প্রণাম’। এই সমাবেশে বিজেপি আলাদাভাবে আমন্ত্রিত না থাকলেও দর্শকাসনের সামনে সারিতে দেখা গেল শুভেন্দু অধিকারী, সুকান্ত মজুমদার, দিলীপ ঘোষ, জ্যোতির্ময় সিং মাহাতদের। তাঁদের সকলের পরনে ছিল আরএসএসের নির্দিষ্ট পোশাক – সাদা শার্ট ও গাঢ় রঙের ট্রাউজার।

সকাল ১০টা নাগাদ বক্তব্য রাখতে ওঠেন সংঘ প্রধান মোহন ভাগবত। নেতাজির মতাদর্শ, কাজকর্ম, জীবনীর টুকরো অংশ তুলে ধরেন তিনি। আপোষহীন সংগ্রামী হিসেবে নেতাজিকে আজীবন স্মরণে রাখাও তাঁকে শ্রদ্ধা জানানোর পক্ষে কম, এমনই মনে করেন ভাগবত। তাঁর কথায়, ”নেতাজির স্বপ্ন ছিল ভারত গঠন। সমগ্র ভারতের একটা ধারণা দিয়েছিলেন তিনি। তাঁর লক্ষ্যই আমাদের সকলের লক্ষ্য হওয়া উচিত। পথ আলাদা হতেই পারে কিন্তু গন্তব্য এক হোক। ব্যক্তিগত নয়, কর্ম সমষ্টিগত ভাবে। সবাইকে নিয়ে তৈরি হোক ভারত। রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ সেই ভারত গড়ার কাজটাই করে চলেছে।”

নেতাজিকে নিয়ে বাংলার মাটিতে খোদ আরএসএস প্রধানের এই শ্রদ্ধা অনুষ্ঠান সাম্প্রতিক রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে যে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ, সন্দেহ নেই।  অনুষ্ঠান শেষের পরই তা নিয়ে প্রতিক্রিয়া দিতে শুরু করেছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলি। তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষের (Kunal Ghosh) বক্তব্য, ”নেতাজি আপনাদের পছন্দ করতেন না, আপনাদের সঙ্গে বিরোধ ছিল। উনি ধর্মনিরপেক্ষ ছিলেন। আর এখন ধর্মের নামে বিদ্বেষ ছড়ানো হয়। আপনাদের অধিকারই নেই নেতাজিকে নিয়ে কোনও কথা বলার।” সংঘ ঘনিষ্ঠ দিলীপ ঘোষের পালটা মন্তব্য, ”নেতাজি অনেক বড়, তাঁকে নিয়ে টানাটানি করে লাভ নেই। নেতাজি দেশনায়ক ছিলেন। আরএসএস দেশভক্ত, তাঁরা নেতাজির অনুপ্রেরণা নিয়েই কাজ করবে।”

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

More News

Recent Comments