বাপ্পা রায়, বানারহাট : গত কিছুদিন আগে এশিয়ান হাইওয়ে ৪৮ এর অংরাভাসা সংলগ্ন ধীরেন দোকান এলাকায় ঘটে ভয়াবহ পথ দুর্ঘটনা। সেই দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় বানারহাট ব্লকের পূর্ব দুরামারী এলাকার সিপিআইএম নেতা কানু রায়ের।কানুর বাইকে থাকা আরেক যুবক অমিত রায় সঙ্গে ছিলেন। কানুর মৃত্যু হলেও গুরুতর জখম হন অমিত রায়। তাকে উদ্ধার করে প্রথমে জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল ও পরে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। কিন্তু বর্তমানেও তার অবস্থা গুরুতর। ডান পায়ে গুরুতর আঘাত পায় অমিত। ফলে তাকে বাইরে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়ার কথা বলেন চিকিৎসক। এই অবস্থায় ছেলেকে বাঁচাতে সাহায্যের আর্জি জানিয়েছেন তার অসহায় মা।

জানা যায়, সদ্য বিভক্ত বানারহাট ব্লকের অন্তর্গত শালবাড়ি ১ গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত পূর্ব দুরমারি এলাকায় বাড়ি অমিতের। পরিবার বলতে মা ও ছেলে। বাবা কয়েক বছর আগে মারা গিয়েছে। ফলে সংসারের দায়িত্ব কাধে নিয়ে অমিতকে পাড়ি জমাতে হয় ভিন রাজ্যে। দীর্ঘদিন ভিন রাজ্যে কাজ করার পর গত কয়েক মাস আগেই বাড়ি ফেরে অমিত। কিন্তু ভাগ্যের পরিহাস নির্বাচনের প্রাক্কালে দুর্ঘটনার কবলে পড়ে অমিত। বাইকে থাকা সিপিআইএম নেতা কানু রায়ের মৃত্যু হলেও প্রাণে বেচেঁ যান অমিত। তবে প্রাণে বাঁচলেও এখনো তাকে সুস্থ্য করতে প্রয়োজন কয়েক লক্ষাধিক টাকা। এদিকে বাড়িতে নুন আনতে পান্তা ফুরা়নোর অবস্থায় এই টাকার কথা শুনেই আকাশ ভেঙে পড়েছে অমিতের পরিবারে। বাড়িতে অসহায় মা এতো টাকা কোথা থেকে জোগাড় করবেন বুঝে উঠতে পারছেন না। ছেলেকে বাঁচাতে মরিয়া চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন মা। কান্নায় ভেঙে পড়ে কার্যত ছেলের প্রাণ ভিক্ষা চেয়েছেন অসহায় মা। তিনি বলেন, “আমার ছেলেকে দয়াকরে কেউ বাঁচান। আমার শেষ সম্বল এই অমিত। আমার ছেলের প্রাণ ভিক্ষা চাইছি সকলের কাছে।” অমিতের জামাইবাবু নিরঞ্জন রায় বলেন, “বাড়িতে একটি টাকাও নেই। এই অবস্থায় কি করে এতো টাকা ব্যবস্থা হবে বুঝে উঠতে পারছি না। যদি কোনো স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা কিংবা সহৃদয় ব্যাক্তি যদি আর্থিক সাহায্য করেন তবে ছেলেটাকে বাঁচানো যাবে। আমি সকলের কাছে অনুরোধ করছি সকলে একটু আর্থিক সাহায্য করুন।”

যদি কেউ সাহায্য করতে চান তবে 9647277093 এই নম্বরে ফোন পে, গুগল পে, পেটিএম করতে পারেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *